AmarMP Admin,

শুরুর আগেই আগ্রহের কেন্দ্রে ‘আমার এমপি ডটকম’

জনগণ এবং জাতীয় সংসদের সদস্যদের মধ্যে যোগাযোগ স্থাপনকারী মাধ্যম হিসেবে কাজ করবে ‘আমার এমপি ডটকম’ নামের একটি ব্যাতিক্রমধর্মী ওয়েবসাইট। ওয়েব পোর্টালটি আগামী মাসে আনুষ্ঠানিকভাবে উদ্বোধন করা হবে। তবে আনুষ্ঠানিক উদ্বোধনের আগেই দেশব্যাপী ব্যাপক সাড়া ফেলেছে আমার এমপি ডটকম পোর্টালটি।

আমার এমপি ডটকম সাইটের উদ্যোক্তা প্রতিষ্ঠান লন্ডন ভিত্তিক প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান টেকশেড। প্রতিষ্ঠানটির কর্ণধার প্রবাসী বাংলাদেশী সুশান্ত দাসগুপ্তের কাছে  এমপি ডটকমের সাড়া কেমন পাচ্ছেন জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘এক কথায় অসাধারণ; আমি এতো সাড়া কল্পনাও করতে পারিনি।’

আমাদের দেশের সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম বা এমন একটি প্ল্যাটফর্মে সংসদ সদস্যদের আগ্রহের কেমন পাচ্ছেন এমন প্রশ্নের জবাবে সুশান্ত দাসগুপ্ত বলেন, ‘বেশিরভাগ এমপি’রাই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এতদিন নিরব ছিলেন। আমাদের এই আইডিয়াকে এখন তারা সবাই স্বাগতই জানাচ্ছেন। এটাকে আমাদের প্রাথমিক বিজয় বলেই ধরে নিতে পারি।’

“অনেকেই প্রশ্ন করতে জানে না- এটাই বড় সমস্যা; কিভাবে একজন মাননীয় সংসদ সদস্যকে শালীনতার সাথে প্রশ্ন করতে হয় এটা জনসাধারণকে অভ্যস্ত করাটাই বড় চ্যালেঞ্জ’ বলে মানছেন সুশান্ত দাস গুপ্ত।”

বাংলাদেশের জাতীয় সংসদের নির্বাচিত ৩’শ এবং সংরক্ষিত ৫০টি নারী আসনের এমপিদের  কাছে কেউ যদি কোনো বিষয়ে জানতে বা জানাতে চান তাহলে এই ওয়েবসাইটে পাঠিয়ে দিলেই যে এমপিকে প্রশ্নটি করছেন তিনি পেয়ে যাবেন।

এই ওয়েবসাইটে থাকবে দেশের সব এমপির তথ্য। যে কেউ ওয়েবসাইটে ঢুকে নিজের এলাকা ও এমপির নাম দিলেই তার সব তথ্য চলে আসবে। নির্বাচন কমিশনে দাখিল করা এমপিদের সকল সম্পদ বিবরণীও থাকবে সেখানে।

কেউ চাইলে তার এমপিকে ই-মেইল, ফোন, টুইট ও প্রশ্ন করার অপশনও পেয়ে যাবেন এই ওয়েব সাইটে। দরকারি মেনুতে ক্লিক করে যোগাযোগ ও সব প্রশ্ন করা যাবে। এমপির বর্তমান ও স্থায়ী ঠিকানাও আছে এই ওয়েবসাইটে।

যেভাবে কাজ করবে আমার এমপি ডটকম:

প্রতিটি সংসদ সদস্যের জন্য একাধিক স্বেচ্ছাসেবক কাজ করবে আমার এমপি ডটকম সাইটে। প্রতিটি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে একজন এবং দেশের বাইরে যে প্রবাসী বাংলাদেশীরা থাকেন তাদের প্রশ্ন জিজ্ঞাসার জন্যও থাকবেন একজন স্বেচ্ছাসেবক। এই স্বেচ্ছাসেবকরা পরিচিত হবেন অ্যামবাসেডর নামে।

জনপ্রতিনিধির সুপারিশ ক্রমে তারা নির্বাচিত হবেন কাজের জন্য। আমার এমপি ডটকম সাইটে গিয়ে যে কেউ প্রশ্ন করতে পারবেন যাকে প্রশ্নটি করতে চাচ্ছেন তার কাছে। এখন এই প্রশ্নের উত্তর জোগাড় করার দায়িত্ব হবে সংশ্লিষ্ট এমপির সুপারিশ করা অ্যামবাসেডরের। তিনিই মূলত জনগণের প্রশ্নের উত্তরটি সংসদ সদস্যের কাছ থেকে জোগাড় করবেন। এভাবেই চলবে জনগণের সামনে আমার এমপি ডট কম ওয়েবসাইটের মাধ্যমে এমপিদের জবাবদিহিতার কাজ।

কারা হবেন অ্যামবাসেডর:

আমার এমপি ডটকম সাইটে স্বেচ্ছাসেবী বা অ্যামবাসেডরের কাজটা কিন্তু একেবারে ফ্রিতে করবেন না কেউই। কাজের জন্য উপযুক্ত সম্মানী থাকছে প্রত্যক অ্যামবাসেডরের জন্যই। একজন অ্যামবাসেডর জনগণের প্রশ্নের ১টি উত্তর সংশ্লিষ্ট সংসদ সদস্যের কাছ থেকে আনতে পারলেই তার জন্য আমার এমপি ডটকম কর্তৃপক্ষ ৫ হাজার টাকা সম্মানীর ব্যবস্থা করেছে। এভাবে কেউ যদি মাসে ১০টি প্রশ্নের উত্তর এনে দেন তাহলে তিনি পাবেন ৫০ হাজার টাকা!

আমার এমপি ডটকম সাইটের জন্য অ্যামবাসেডর নিয়োগ এখনো চলছে। চাইলে যে কেউই আবেদন করতে  পারবেন। এর জন্য amarmp.com সাইটে গিয়ে প্রয়োজনীয় তথ্য পেয়ে যাবেন। যে সংসদ সদস্যের সঙ্গে কাজ করতে চান তার থেকে নির্দিষ্ট ফর্ম্যাটে (ফর্ম্যাটটি amarmp.com সাইটে পাবেন) তার অফিসিয়াল প্যাডে সাক্ষর করে পাঠিয়ে দিন আমার এমপি ডটকমে। মনে রাখবেন আপনি যেই সংসদ সদস্যের সঙ্গে কাজ করতে ইচ্ছুক তার লিখিত অনুমোদন প্রয়োজন।

Source: ChannelIOnline.


799 views