Avatar
AmarMP Admin,

আমার এমপির জরিপে গাইবান্ধা-১ উপ নির্বাচনে এগিয়ে জাতীয় পার্টি

আমারএমপি ডট কম বিশেষ রিপোর্টঃ গাইবান্ধা-১ আসনের নির্বাচনের ক্ষণ গণনা শুরু হয়েছে। অপেক্ষা শুধু মাঝে একটি রাতের। এরই মধ্যে নির্বাচনের সকল প্রকার প্রচার প্রচারণা শেষ হয়েছে। বাংলাদেশে প্রথমবারের মত জনগণ এবং জনপ্রতিনিধিদের মধ্যে সেতুবন্ধনকারী প্ল্যাটফর্ম আমার এমপি ডট কমের একটি বিশেষ টিম সেখানে জরিপ চালিয়েছে। আমার এমপির জরিপ অনুযায়ী গাইবান্ধা-১ আসনের উপ-নির্বাচনে এগিয়ে রয়েছেন জাতীয় পার্টির প্রার্থী শামীম হায়দার পাটোয়ারী।

এই আসনটিতে ২২ মার্চ উপ-নির্বাচন উপলক্ষে প্রতীক বরাদ্দের পর থেকে চলতে থাকে প্রার্থী ও সমর্থকদের নির্বাচনী ব্যস্ততা। রাত দিন প্রচার-প্রচারণা, উঠান বৈঠকসহ নানা প্রতিশ্রুতির মধ্যদিয়ে চলেছে ভোটারদের মন জয়ের কাজ। তবে কিছু কিছু ক্ষেত্রে প্রার্থীরা একে অপরের বিরুদ্ধে পোষ্টার ছিড়ে ফেলার অভিযোগ করেন।

প্রায় সাড়ে তিন লাখ ভোটারের এই আসনটিতে তফসিল ঘোষণার সঙ্গে সঙ্গেই প্রার্থীরা মাঠে নেমে ভোটারদের মন জয় করতে দ্বারে দ্বারে ঘুরেছেন। প্রচারণার সময়সীমা শেষ হয়ে গেছে তাই এখন অপেক্ষা ভোটারদের দিকে তারা কার পক্ষে ব্যালট পেপারে সিল মারবেন।

গ্রামে গ্রামে, তিস্তা নদীর দুর্গম চরাঞ্চলে চলেছে প্রার্থীদের গণসংযোগ। পোষ্টারে পোষ্টারে ছেয়ে গেছে রাস্তঘাটসহ দোকানপাট। তিস্তা-যমুনার বালুচরের বাসিন্দাদের মূল শ্রোতধারায় যুক্ত করাসহ তিস্তা সেতু নির্মাণের প্রতিশ্রুতিও দিয়েছেন প্রার্থীরা।

ভোটারদের বিভিন্ন দাবী গুলোর মধ্যে রয়েছে চরে বাস করা বানভাসি মানুষের রাস্তাঘাট, ব্রিজ, কার্লভার্টসহ নানাবিধ দাবী। এই দাবীগুলো বাস্তবায়ন করবেন যিনি তাকেই যোগ্য প্রার্থী বলে মনে করছেন ভোটাররা। ভোটারদের চাওয়া বন্যা হলে সাহায্য। রাস্তাঘাট চায় চর এলাকার মানুষ। তাই সেই এলাকার অধিকাংশ মানুষ জাতীয় পার্টির পাটোয়ারিকে ভোট দিতে চায় বলেও জানায় আমার এমপি ডট কম টিমের কাছে। চর এলাকার মানুষের উন্নয়নে জন্য তিনি কাজ করবেন বলে আশা করেন তারা। অনেক ভোটার তিস্তাসেতুর বাস্তবায়ন দেখতে চায়। চরবাসিদের যাতায়াতের জন্য রাস্তাঘাট, ব্রীজ, কার্লভার্ট নির্মাণ করে যাতায়াত ব্যবস্থাকে উন্নত করা তাদের দাবি।

নির্বাচনে প্রধানত প্রতিদ্বন্দ্বীতা হবে জাতীয় পার্টির লাঙ্গল প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করা শামীম হায়দার পাটোয়ারী এবং নৌকা প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করা আওয়ামী লীগের প্রবীণ নেতা গোলাম মোস্তফার মধ্যে। অন্যদিকে আপেল প্রতীক নিয়ে স্বতন্ত্রভাবে নির্বাচনের মাঠে রয়েছেন মোস্তফা মোহসীন।

নির্বাচনে বিজয়ী হওয়ার প্রত্যাশা ব্যক্ত করেছেন তিনজনই। আমার এমপি ডট কমের কাছে জাতীয় পার্টির শামীম হায়দার পাটোয়ারী বলেন, ‘এই আসনটি সব সময় জাতীয় পার্টির দূর্গ বলে পরিচিত। মানুষ সব সময়ই জাতীয় পার্টিকে ভালোবাসে, লাঙ্গলকে ভালোবাসে।’

তাদের প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপি মাঠে নেই বলে বিজয় আরও সুনিশ্চত বলে মনে করেন তিনি। তার মতে, ‘এখানে যে দলের সঙ্গে সব সময় জাতীয় পার্টির কনটেস্ট হতো সেই দলটিই আসলে এখন নির্বাচনে নাই। এবং যে দলটির সঙ্গে মূলত কনটেস্ট হবে, সেই দলটি (নৌকা) অতীতের নির্বাচনে লাঙ্গলের সঙ্গে তৃতীয় অবস্থানে থাকতো। সেই তৃতীয় দলের সঙ্গে আমাদের কনটেস্ট হচ্ছে। অতীতের সব নির্বাচনে এখানে লাঙ্গল বিজয়ী হয়েছে।’

২০১৪ সালের নির্বাচনে তার প্রার্থীতা প্রত্যাহারের কারণে নৌকা বিজয়ী হয়েছিল বলেও জানান তিনি। তিনি বলেন, ‘এখানে ২০০৮ সালের নির্বাচনেও জাতীয় পার্টি জিতেছে। ২০০১৪ সালে আমি মনোনয়ন প্রত্যাহার করলে আসনটি আওয়ামী লীগের দখলে যায়।’

নির্বাচনের পরিবেশ নিয়ে সামান্য অভিযোগ থাকলেও সেগুলো তেমন গুরুতর নয় বলে আমার এমপি ডট কমকে জানান তিনি। তিনি বলেন, ‘নৌকা সমর্থকরা দুয়েকটি জায়গায় ঝামেলা করার চেষ্টা করছে। দুয়েক জায়গাতে তারা পোষ্টার ছিড়ে ফেলেছে এবং ভোটারদেরকে ভয় দেখাচ্ছে, সেগুলো আমি প্রশাসনকে জানিয়েছি। প্রশাসন আমাকে আশ্বস্ত করেছে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার। তবে যাই ঘটুক এই সংখ্যাটি খুব বেশি না। এসব বিচ্ছিন্ন ঘটনা হিসেবেই আমি মনে করছি।’

এদিকে আওয়ামী লীগের প্রবীণ নেতা গোলাম মোস্তফা তার ভালো ব্যবহারের কারণে এলাকার জনগণের রায় তার পক্ষে পাবেন বলে জানিয়েছেন। তিনি বলেন, ‘২২ তারিখের নির্বাচনে নৌকা মার্কার জয় সুনিশ্চিত হবে, এটা আমি মনে প্রাণে বিশ্বাস করি দুটি কারণে। এক, যারা আওয়ামী লীগ করেন তারা সবাই আমাকে ভোট দিবেন এবং দুই, আমি যে মানুষকে ভালোবাসি, মানুষের সঙ্গে আছি, আমার ব্যবহার আচার এবং চারিত্রিক কারণে আমি অন্যদের ভোটও পাব। এই দুই ভোটের সমন্বয়ে আমি বিপুল ভোটের ব্যবধানে নির্বাচিত হবো বলে বিশ্বাস করি।’

তিনি আরও বলেন, নির্বাচনের জন্য মানুষ প্রস্তুত এবং মানুষ অত্যন্ত আগ্রহী। তারা আগ্রহের সঙ্গে উৎসবমুখর পরিবেশে ভোট দিবে বলে জনতার কাছ থেকে আমরা ধারণা পাচ্ছি বলেও জানান তিনি।

আপেল প্রতীক নিয়ে স্বতন্ত্র নির্বাচন করা মোস্তফা মোহসিন এলাকায় তার পূর্বের ১০ বছরের সেবামূলক কাজের বিনিময়ে ভোট চাচ্ছেন এলাকাবাসীর কাছে। তিনি জানান, ‘আমি নির্বাচন করছি মূলত বিগত দশ বছর ধরে বিভিন্ন ধরনের চিকিৎসা এবং মন্দির-মসজিদ এবং নিরাপদ পানির ব্যবস্থা করেছি। আমার ধারণা এখানকার জনগণ আমার এই কাজকে মূলায়ন করবে এবং আমাকে আপেল মার্কায় ভোট দিবে।’

বুধবারের নির্বাচন সুষ্ঠু, নিরপেক্ষ ও অবাধ করেত তৎপর রয়েছে প্রশাসন, এমনটাই জানিয়েছেন স্থানীয় ম্যাজিস্ট্রেট। তিনি জানান, ‘যেহেতু একটি মাত্র আসনের নির্বাচন তাই এখানে নির্বাচনের জন্য সর্বাত্মক নিরাপত্তা ব্যবস্থা সরকার নিবে। প্রশাসনসহ নিরাপত্তা বাহিনী পুলিশ, র‌্যাব, বিজিবি সব কিছু থাকবেই। আর এই এলাকায় একটা ঐতিহ্য আছে, মানুষজন খুব উৎসব মুখর পরিবেশে ভোট দেয়। বিগত নির্বাচনগুলোতে চমৎকার পরিবেশ ছিল সেই ধারা অব্যাহত থাকবে বলেও তিনি আশা প্রকাশ করেন।

Golam Mustofa Ahmed -গোলাম মোস্তফা আহমদ Shameem Haider Patwary -শামীম হায়দার পাটোয়ারী
#গাইবান্ধা-১ উপ নির্বাচন #Gaibandha-1 Bu-Election #Shameem Haider Patwary #গোলাম মোস্তফা আহমদ #By-Election 2017 #Gaibandha-1 By-Election

4687 views