View Question 1148 views

Subject : দশধার গ্রামের বিদ্যুতের খুটিগুলো এখনো আসে নি, এইজন্য আপনার দৃষ্টি আর্কষন করছি।

Avatar

Written By : MD IMAM HOSSAIN MOJUNO

তারিখ: ২৩.০৩.২০১৭

বরাবর,

মাননীয় এমপি মহোদয়, 

মাননীয় জাতীয় সংসদ সদস্য জনাব আনোয়ারুল আবেদীন খান তুহিন, নান্দাইল, ময়মনসিংহ।  ১২ নং জাহাঙ্গীরপুর ইউনিয়নের দশধার গ্রামের বিদ্যুতে টেনডার হয়েছে বিগত ১ বৎসর আগে। এখনো কোন বিদ্যুতের কোন সরঞ্জাম আসেনি। ঠিকাদার জানাব জুলহাসকে ও পরিচালক টিপু সুলতানকে কাজের অবগতির বা সরঞ্জামাদি জন্য জিজ্ঞাসা করলে শুধু  বলে এইতো মাল পাঠাবো ,পাঠাবো বলে বিভিন্ন তালবাহানা করে থাকেন। কিন্তু আশ পাশের গ্রামের বিদ্যুাৎ এসেছে দশধার গ্রামের বিদ্যুতের সরঞ্জামাদী আসার কোন খবর নেই।  তাই আপনার নিকট আকুল আবেদন আমাদের গ্রামবাসির দীর্ঘদিন পর আপনার মাধ্যমে বিদ্যুতে আলোর মুখ দেখতে পারছে। তাই আপনার সু-স্বাস্থ্য কামনা করি ও দীর্ঘজীবি কামনা করি। গ্রামটি বিদ্যুাতায়ন হলে গ্রামের মানুষ অনেক ধরনের সুযোগ সুবিধা উপভোগ করবে।

অতএব, আপনার নিকট আকুল আবেদন এই যে, উপরুক্ত বিষয়টি বিবেচনা করে আপনি দশধার গ্রামের বিদ্যুতের সরঞ্জাম পত্র ও বিদ্যুাৎ উদ্ভোধনের জন্য অতি জরুরি দেওয়ার জন্য আপনার সু-মর্জি কমনা করছি।

 

বিনীত নিবেদক

মোঃ ইমাম হোসেন মজনু

সভাপতি, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ

৯নং ওয়ার্ড, জাহাঙ্গীর ইউনিয়ন

নান্দাইল, ময়মনসিংহ।

Avatar

Written By : Anwarul Abedin Khan -আনোয়ারুল আবেদীন খান

Public

প্রশ্নকারী জনাব ইমাম হোসেন মজনুকে ধন্যবাদ এবং সেই সাথে আমার এমপি ডটকমের উদ্যোক্তাদেরও ধন্যবাদ জানাই।

প্রশ্নকারির জবাবে জাহাঙ্গীরপুর বাসিকে জানাতে চাই,জাহাঙ্গীরপুর ইউনিয়নের প্রতিটি ঘরে ঘরে বিদ্যুতের আলো পৌছে দেয়ার লক্ষ্যে ইতিমধ্যে জরিপের কাজ সমাপ্ত হয়েছে।। দশধার গ্রামে বিদ্যুতের আলো পৌছে দেয়ার লক্ষ্যে ইতিমধ্যে ৩. ৮ কিলোমিটার বিদ্যুতের লাইন নির্মান কাজের জন্য দরপত্র আহবান করা হয়েছে।

নান্দাইলের প্রায় প্রতিটি গ্রামেই বিদ্যুতের লাইন নির্মান কাজ চলমান রয়েছে।। একই ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের অনেকগুলো কাজ একসাথে করতে হচ্ছে বিধায় কাজ শুরু হতে দেরি হচ্ছে।। তবে প্রশ্নকারিকে আশ্বস্ত করতে চাই,আমি ইতিমধ্যেই ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের সাথে যোগাযোগ করেছি,, আগামী মে মাসের মধ্যেই জাহাঙ্গীরপুর ইউনিয়নের দশধার গ্রামে বিদ্যুতের লাইন নির্মান কাজ শুরু হবে।

সবাইকে ধন্যবাদ।

জয় বাংলা জয় বঙ্গবন্ধু।