View Question 1919 views

Subject : আমার এলাকা গৌরীপুরেরে উন্নয়ন পরিকল্পনা জানতে চাই ।

Avatar

Written By : Haider Khaled Maruf

প্রিয় সাংসদ  বীর মুক্তিযোদ্ধা নাজিম উদ্দিন আহমেদ এমপি মহোদয় ,

১> আমি গৌরীপুরের একজন জনতা হিসেবে আমাদের উপজেলার আগামী  কর্ম পরিকল্পনা এবং বর্তমান চলমান উন্নয়ন প্রকল্প সমূহ সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে চাই ।

২> গৌরীপুরের মাদক নিয়ন্ত্রণ এবং দূরীকরনে আপনার কোন পরিকল্পনা চলমান বা অপেক্ষমান আছে কিনা ?

৩> ঝড়ে পরা শিশুদের শিক্ষার আওতায় আনতে আপনার কোন পরিকল্পনা আছে কিনা  ?

আপনার সুসাস্থ্য কামনা করছি ।

মারুফ

Avatar

Written By : Nazim Uddin Ahmed -নাজিম উদ্দিন আহমেদ

Public

ধন্যবাদ মারুফ আমাকে প্রশ্ন করার জন্য এবং সেই সাথে ধন্যবাদ আমার এম পি ডট কম কে জনগনের সাথে যোগাযোগের  একটি ক্ষেত্র তৈরী করে দেয়ার জন্য ।

গৌরিপুর একটি অবহেলিত জনপদ । এর নানাবিধ সমস্যা রয়েছে । আমি নির্বাচিত হওয়ার পর থেকে অত্র এলাকার প্রধান সমস্যা যাতায়াত ব্যবস্থার উন্নয়ন সাধনে বদ্ধ পরিকর । আমি ইতিমধ্যে ১৮ কিঃমিঃ রাস্তা পাকা করনের উদ্যোগ নিয়েছি । ৩.৫ কিঃমিঃ রাস্তার কাজ চলমান রয়েছে । গৌরিপুরের জনগন যাতে শতভাগ বিদ্যুৎ সুবিধার আওতায় আসে সেজন্য পদক্ষেপ গ্রহণ করেছি । ইতিমধ্যে প্রায় ৮০ শতাংশ কাজ সম্পন্ন হয়েছে । বাকি কাজ এই বছরের জুনের মধ্যে সম্পন্ন হবে বলে আশা রাখি ।

‘আলোকিত বাজার’ প্রকল্পের মাধ্যমে উপজেলার ছোট বড় বাজারগুলোতে সোলার প্যানেল স্থাপনের মাধ্যমে আলোকিত করার কাজ ইতিমধ্যেই শুরু হয়েছে ।

নতুন একটি পাবলিক হল নির্মাণের অনুমোদন নেয়া হয়েছে যার কাজ কিছু দিনের মধ্যেই শুরু হচ্ছে ।

বহুল আকাঙ্খিত ফায়ার সার্ভিস স্টেশনের অনুমোদন নেয়া হয়েছে । এর কাজও কিছু দিনের মধ্যেই শুরু হচ্ছে ।

মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স ভবন নির্মাণ কাজের অনুমোদন ও টেন্ডার সম্পন্ন হয়েছে । এর কাজও স্বল্প দিনের মধ্যেই শুরু হচ্ছে ।

ভবিষ্যৎ পরিকল্পনাঃ

যাতায়াত ব্যবস্থাকে আরও উন্নত করার জন্য প্রায় ৩৬ কোটি টাকার রাস্তার কাজের আবেদন করা হয়েছে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ে ।

উপজেলায় অন্তত ২০ টি নতুন প্রাইমারী স্কুল স্থাপন ।

গরীব ও অসহায় অন্তত ১০০ টি পরিবারকে আশ্রায়ন প্রকল্পের আওতায় আনা ।

স্কুল এবং মাদ্রাসার ঝুঁকিপূর্ণ ভবন ভেঙ্গে নতুন ভবন নির্মাণ এবং শ্রেণি কক্ষের সংকট নিরসনের জন্য ভবন নির্মাণের পরিকল্পনা রয়েছে ।

ঝড়ে পড়া শিশুদের শ্রেণি কক্ষে ফেরানোর উদ্দেশ্যে শিশুর অভিভাবকদের মোটিভেশনের জন্য শিক্ষকদের এবং উপজেলা শিক্ষা অফিসকে নির্দেশনা দিয়েছি । আনন্দ স্কুলের কার্যক্রমকে বেগবান করার লক্ষ্যে এর কর্মকান্ডকে নিজে মনিটরিং করছি ।

মাদকের ব্যপারে আমার অবস্থান সবসময়ই জিরো টলারেন্স । মাদকের সাথে জরিত ব্যক্তি সে যেই হোক না কেন তাকে আইনের আওতায় এনে কঠোর শাস্তি প্রদানের নির্দেশ প্রশাসনকে দেয়া আছে । এ ছাড়া মাদক বিরোধী সমাবেশ ও সচেতনতামূলক সভা-সেমিনার এর কর্মসূচি প্রতিনিয়তই গ্রহণ এবং পালন করছি ।

ধন্যবাদ,